বুধবার, ২০ জুন ২০১৮ ০৮:১২:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বিশ্বের সবচেয়ে প্রবীণ প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন মাহাথিরবজ্রপাতে মৃত্যু থেকে রক্ষা পেতে হলে করনীয় কি ?পটুয়াখালীর তরুণের চালকবিহীন গাড়ি আবিষ্কার স্পেনে ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষনাতাবলিগ জামাতের সাদ পন্থী ও তার বিরোধী গ্রুপের সংঘর্ষডিইউজে নির্বাচনে গনি - শহিদ পরিষদের অবিস্মরনীয় জয়কোটা সংস্কার আন্দোলনের বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না: ডাকসুর সাবেক চারভিপি।সন্তান পেটে রেখেই সেলাই, দুই লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দাবিসকল সরকারি চাকরি থেকে স্বাধীনতাবিরোধীদের সন্তানদের বরখাস্তের দাবিদি স্টুডেন্ড’স ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন ঢাকা মহানগরী উত্তরের বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান সম্পন্ন।
মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০১৫, ১০:৪০:৫১
Zoom In Zoom Out No icon

জুইস সেন্টারে গাফফারের অনুষ্ঠান পণ্ড

জুইস সেন্টারে গাফফারের অনুষ্ঠান পণ্ড

নেশন নিউজ ডেস্ক : শনিবার রাত থেকেই গাফফার চৌধুরীর সভাকে ঘিরে বাংলাদেশী কমিউনিটিতে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। বিশেষ করে জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশী মসজিদগুলো থেকে তারাবিহ নামাজ শেষে বেরিয়ে বেশীর ভাগ মুসল্লি গাফফার চৌধুরীকে ইসলামবিরোধী আখ্যা দিয়ে ১২ জুলাই তার সংবর্ধনা অনুষ্ঠান প্রতিহতের ঘোষণা দেয়। 

অন্যদিকে সংবাদ সংগ্রহ নিয়ে গণমাধ্যম কর্মীরা ছিল বেশ তৎপর। ১২ জুলাই রবিবার সন্ধ্যার পর থেকে ইফতার পর্যন্ত নিউ ইয়র্কের বাংলাদেশী জনবহুল এলাকা জ্যাকসন হাইটস-এর জুইস সেন্টারে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল। এমনিতেই প্রবাসী বাংলাদেশী এবং মুসুল্লীদের তোপের মুখে ছিলেন গাফ্ফার চৌধুরী। 

এ পরিস্থিতিতে কোন প্রকার ঘোষণা ছাড়াই তার সংবর্ধনা অনুষ্ঠান বাতিলের ঘোষণা দেয় জুইস সেন্টার কর্তৃপক্ষ। রবিবার বেলা ১২টার পর খবর আসে জুইস সেন্টারে হচ্ছে না বিতর্কিত গাফ্ফার চৌধুরীর নাগরিক সংবর্ধনা। এ নিয়ে নিউইয়র্কের বাংলা চ্যানেলগুলোর টিকারে ব্রেকিং নিউজ চালানো হয়; ‘গাফ্ফার চৌধুরীর জুইস সেন্টারের সভা বাতিল করা হয়েছে।’

 অন্যদিকে অনুষ্ঠানের আয়োজকরা বাংলাদেশী কমিউনিটি থেকে অনেক দূরে সিটির জেএফকে এয়ারপোর্টের কাছাকাছি ক্রাউন প্লাজা হোটেল’র বল রুমে সংক্ষিপ্ত গোপন সভার আয়োজন করেন। সেখানে বিতর্কিত আব্দুল গাফ্ফার চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। পরে মিডিয়া কর্মীরা সংবাদ পেয়ে সেখানে উপস্থিত হলে তড়িঘড়ি করে গাফ্ফার চৌধুরী ও আয়োজকরা স্থান ত্যাগ করেন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির দাবিদারদের জুইস সেন্টারে সংবর্ধনা সভা করার ওই ঘোষণাকে কেন্দ্র করে আগেই ফুঁসে ওঠে প্রবাসীরা। আলোচনা আর সমালোচনার ঝড় বইতে থাকে কমিউনিটিতে। ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের মাঝে বিষয়টি ঘিরে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এরই মধ্যে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠনের পক্ষ থেকে গাফ্ফার চৌধুরীকে প্রতিহত করার ঘোষণা দেয়া হয়। এছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের পক্ষেও জুইস সেন্টারে গাফ্ফার চৌধুরীর সভাস্থলে সকল ধর্মপ্রাণ প্রবাসী ও মুসলামদের ছুটে আসার আহ্বান জানানো হয়। 

এরই ধারাবাহিকতায়, সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার পর থেকেই জুইস সেন্টারের প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান নেয় জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি ও এর সহযোগি সংগঠনের নেতারা। যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জিল্লুর নেতৃত্বে এতে অংশ নেন প্রবাসী বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতা। 

এসময়ে তারা গাফ্ফার চৌধুরীবিরোধী বিভিন্ন শ্লোগান দেন। এ সময় জিল্লুর রহমান জিল্লু বলেন, আল্লাহ ও ইসলাম ধর্মবিরোধী গাফ্ফার চৌধুরীকে আমরা জ্যামাইকাতে ও ব্র“কলিনেও সভা করতে দেইনি। সাধারণ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি ও প্রবাসীদের নিয়ে প্রতিহত করেছি। আজকেও তার পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি জুইস সেন্টারে ৮ টায় হওয়ার কথা। আমরা সবাই এখানে অবস্থান করছি। সাহস থাকলে আসুক ধর্মপ্রাণ প্রবাসী ও সাধারণ জনগণ ধর্মবিরোধী আয়োজকদের প্রতিহত করবে ইনশাআল্লাহ। 

সমাবেশে যোগদানকারী নেতাদের মধ্যে বিএনপি নেতা সামসুল ইসলাম মজনু, হেলাল উদ্দিনসহ এবাদ চৌধুরী, আব্দুল খালেক আকন্দ, জাকির এইচ চৌধুরী, আবু সাঈদ আহমদ, সাদেক আহমেদ, আবুল খায়ের, নূরে আলম, আলতাফ, সেলিম রেজা, সাইদুর রহমান, সৈয়দ এনাম আহমেদ, মার্শাল মুরাদ, আব্দুর রহিম, মোহাম্মদ আলী রেজা, রেজাউল আজাদ ভুইয়া, শহাহীন আহমেদ, জীবন শফিক, সাদেক আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ সময় এলাকায় ব্যাপক পুলিশ প্রহরা ছিল।

মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ, রাসুল (স.), ইসলাম ধর্ম, আরবী ভাষা ও হিজাব নিয়ে গাফ্ফার চৌধুরীর মন্তব্যকে ঘিরে পুরো নিউইয়র্ক’সহ দেশে-বিদেশে ইতোমধ্যে চলছে তোলপাড়। গেল ৩ জুলাই জাতিসংঘ বাংলাদেশ স্থায়ী কার্যালয়ে প্রথম ওই বক্তব্য ঘিরে পূর্ব ঘোষিত ৫ জুলাই রোববারের বাংলাদেশী অধ্যুষিত জ্যামাইকা ব্র“কলীনের সভা পন্ড হয়ে যাওয়ার পর পত্রিকা, বিজ্ঞাপন ও সামাজিক যোগাযোগ ফেসবুকের মাধ্যমে ফের সভার করার চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয় ‘যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সম্মিলিত নাগরিক শক্তি’র নামের সংগঠন। সংগঠনটি বাংলাদেশী অধ্যুষিত জ্যাকসন হাইটসের জুইস সেন্টারে গাফ্ফার চৌধুরীকে সংবর্ধনার অনুষ্ঠান ঘোষণা করে।

যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সম্মিলিত নাগরিক শক্তি’র পক্ষে সীতাংশু গুহ তার এবং মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকলের ফেসবুকে বার্তা (স্টাটাস) পাঠান গাফ্ফার চৌধুরীকে নিয়ে তারা নিউ ইয়র্কের ‘জন এফ কেনেডি’ বিমান বন্দরের কাছে ক্রাউন প্লাজা হোটেলে অনুষ্ঠান আয়োজন করছেন। এ খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরাও ছুটে যান সেখানে। গিয়ে দেখা যায় বেলা ৩ টার পর থেকে ঐ হোটেলের বলরুমে মিলনায়তনে গুটি কয়েকজন মিলে গাফ্ফার চৌধুরীর বক্তব্য শুনছেন। এ সময় গণমাধ্যম কর্মীরা ছবি তুলতে গেলে তাদের বাধা দেয়া হয়। দ্রুত ঘটনানস্থল ত্যাগ করে লিফটে নিচে নামিয়ে আনা হয় আব্দুল গাফ্ফার চৌধুরীকে। এ সময় আয়োজকদের মধ্যে অন্যতম সীতাংশু গুহের কাছে সাংবাদিকরা জানতে চান, কেন গাফ্ফার চৌধুরীকে গোপনে এখানে নিয়ে আসা হয়েছে। অতি গোপনে ও গুটিকয়েক লোকদের নিয়ে এ বৈঠকের যৌক্তিকতা কি। 

জবাবে উপস্থিত সাংবাদিকদের সীতাংশু গুহ বলেন, আপনারা জানেন গাফ্ফার চৌধুরী হচ্ছেন একজন লিজেন্ড। ৩ জুলাই তার বক্তব্যকে ঘিরে মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। দেশের ভাষা আন্দোলনের কালজয়ী গানের রূপকারকে এ ভাবে অপমান করবে তা আমরা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির বিবেকবানরা মানতে পারছি না। উনাকে গেল দুটি সভাও করতেও দেয়া হয় নি। তাই আমরা একটি নাগরিক সংবর্ধনার আয়োজন করি। 

এ সময় সাংবাদিকরা বলেন, তবে আপনারা তা তো করতে পারলেন না। এসময় সীতাংশু গুহ বলেন, দেখুন আমরা আজকে জুইস সেন্টারের অনুষ্ঠানটি করতে পারলাম না এটা ঠিক। শুনেছি যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির পক্ষে প্রতিরোধের ঘোষণা দিয়েছে। কোন প্রকার অপ্রীতিকর পরিস্থিতির যাতে না ঘটে তাই আমরা উনাকে এখানে নিয়ে আসি। অবশেষে উই ডিড ইট (আমরা পেরেছি)। আমাদের জয় হয়েছে।

নেশন নিউজ/এম/এফএ

এ রকম আর ও খবর



বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি  .  জাতীয়  .  স্বাস্থ্য  .  দেশ  .  লাইফস্টাইল  .  ফিচার  .  বিচিত্র  .  আন্তর্জাতিক  .  রাজনীতি  .  শিক্ষাঙ্গন  .  খেলাধুলা  .  আইন-অপরাধ  .  বিনোদন  .  অর্থনীতি  .  প্রবাস  .  ধর্ম-দর্শন  .  কৃষি  .  রাজধানী  .  শিরোনাম  .  চাকরি
Publisher :
Copyright@2014.Developed by
Back to Top