Nationnews24.com | Leading bangla online newsporlal in bangladesh.
আদালতের পথে খালেদা জিয়া আদালতের পথে খালেদা জিয়া
বৃহস্পতিবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন
Nationnews24.com | Leading bangla online newsporlal in bangladesh.

Nationnews24.com | Leading bangla online newsporlal in bangladesh.

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় শুনতে আদালতে যাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। বৃহস্পতিবার বেলা পৌনে ১২ টায় গুলশানের বাসা থেকে বকশীবাজারে আলিয়া মাদ্রাসায় স্থাপিত বিশেষ আদালতের উদ্দেশে রওয়ানা দেন তিনি। খালেদা জিয়া বাসা থেকে বেরিয়ে গুলশান-২, গুলশান-১, নাবিস্কো মোড়, পেরিয়ে মগবাজার ফ্লাইওভার দিয়ে কাকরাইল, হাইকোর্ট ও দোয়েল চত্বর হয়ে বকশীবাজারের আদালতে যাচ্ছেন। এদিকে সকাল ১০টা ২০ মিনিটে আদালতে পৌঁছেছেন বিচারক ড. আখতারুজ্জামান। তিনি নিজের খাসকামরায় অবস্থান করছেন। খালেদা জিয়া আদালতে পৌঁছলে তার উপস্থিতিতে রায় ঘোষণা করবেন বিচারক। এরই মধ্যে খালেদা জিয়ার আইনজীবী সুপ্রিমকোর্ট বারের সাবেক সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন, বর্তমান সভাপতি জয়নুল আবেদীন, মীর নাসির উদ্দীন, নিতাই চন্দ্র রায়, সানাউল্লাহ মিয়া, আজিজুর রহমান খান বাচ্চু, আমিনুল ইসলাম ও জয়নুল আবেদীন মেজবাহ আদালতে উপস্থিত হয়েছেন।

এ ছাড়া রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাডভোকেট খন্দকার আব্দুল মান্নান, মীর আবদুস সালাম প্রমুখ আদালতে উপস্থিত হয়েছেন। রায় উপলক্ষে কারাগার থেকে মামলার দুই আসামি সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল ও ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদকে আদালতে আনা হয়েছে।

আদালতের ভেতরে সাদা পোশাক ও পোশাক পরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। বাইরে বিপুলসংখ্যক র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার তিন আসামি বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী পলাতক রয়েছেন।

খালেদা জিয়াসহ তিন আসামির উপস্থিতিতে আজ দুপুর নাগাদ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার ছয় আসামির বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করবেন।

২০০৮ সালের ৩ জুলাই জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের নামে এতিমদের জন্য বিদেশ থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে রাজধানীর রমনা থানায় মামলাটি করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।